ভাস্কর্য ইস্যু: চরমপন্থী অপশক্তিকে প্রতিহত না করলে ফলাফল হবে ভয়াবহ

প্রকাশিত: ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ , ডিসেম্বর ৪, ২০২০

প্রথমে ওরা বলেছে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে। প্রতিবাদের মুখে বিপদ আঁচ করতে পেরে এখন বলছে সব রকমের ভাস্কর্য। যা আরো ভয়ংকর কথা।

এইখানে সফল হলে বলবে গান বাজনা হারাম। নাটক, সিনেমা হারাম। টিভি দেখা হারাম। চিত্রকর্ম হারাম। আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা হারাম। গ্রাম বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্য যাত্রা পালা, সার্কাস ইতিমধ্যে স্থানীয় ফতোয়া মাসালা দিয়ে প্রায় বন্ধ করে দিয়েছে।

তারা বলবে, পহেলা বৈশাখ হারাম, পহেলা ফাল্গুন হারাম। শহীদ মিনার হারাম। জাতীয় স্মৃতি সৌধ হারাম। ছেলেদের টাকনু পর্যন্ত কাপড় পরতে হবে। বোরকা ছাড়া বের হলে মেয়েদের গায়ে আলকাতরা মেখে দিবে। এইভাবে একসময় আমাদের জীবনটাই হারাম করে দিবে।

কেউ যদি খুশি হয়ে থাকেন অথবা নিশ্চুপ থাকেন এই ভেবে যে ওরাতো বঙ্গবন্ধু কিংবা আওয়ামীলীগকে টার্গেট করেছে। তাহলে আপনি বোকার স্বর্গে বাস করেন। এই চরমপন্থী অপশক্তিকে প্রতিহত করতে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক আন্দোলন দরকার। সবাইকেই এগিয়ে আসতে হবে। নয়তো এর ফলাফল হবে ভয়াবহ। শুধু আওয়ামীলীগ না পুরা জাতিকেই তা বহন করতে হবে।

হয়তো একদিন বিজয় শ্লোগান হবে-“আমরা হয়েছি তালেবান, বাংলা হয়েছে আফগান।”

[প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেসসচিব আশরাফুল আলম খোকনের ফেসবুক থেকে]

প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন আমাদের পোর্টালে। কোন ঘটনা, পারিপাশ্বিক অবস্থা, জনস্বার্থ, সমস্যা ও সম্ভাবনা, বিষয়-বৈচিত্র বা কারো সাফল্যের গল্প, কবিতা,উপন্যাস, ছবি, আঁকাআঁকি, মতামত, উপ-সম্পাদকীয়, দর্শনীয় স্থান, প্রিয় ব্যক্তিত্বকে নিয়ে ফিচার, হাসির, মজার কিংবা মন খারাপ করা যেকোনো অভিজ্ঞতা লিখে পাঠান সর্বোচ্চ ৩০০ শব্দের মধ্যে। পাঠাতে পারেন ছবিও। মনে রাখবেন দৈনিক আলোকিত ভোর.কম পোর্টালটি সকল শ্রেণী পেশার মানুষের জন‌্য উন্মুক্ত। তাছাড়া, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার স্বাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবর অথবা লেখা মান সম্পন্ন এবং বস্তুনিষ্ঠ হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে। লেখা পাঠানোর ইমেইল- dailyalokitovor@gmail.com