দেশ স্বাধীন করে স্বীকৃতি মিলেনি, হকারি করে চলেন লুৎফর

প্রকাশিত: ৭:২৬ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ১৮, ২০২০

বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমান প্রামানিক (৭৮) শেষ জীবনে এসে সংসারের চালাতে পত্রিকা বিক্রির (হকারি) পেশাকে আকড়ে ধরেছেন।

সকাল হলেই পায়ে হেটে মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন বিভিন্ন ধরনের জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকা।

জীবনের শেষ সময়ে সম্পদশালী না, নিজেকে সরকারিভাবে স্বীকৃত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দেখে যেতে চান লুৎফর রহমান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশ গ্রহণ করেন উপজেলার তালোড়ার বালুকাপাড়ার মৃত রইচ উদ্দিনের ছেলে লুৎফর রহমান প্রামানিক। প্রথমে তিনি পশ্চিম দিনাজপুর ভারতের কুরমাইলে প্রশিক্ষণ নেন।

প্রশিক্ষণ ও অপারেশন ক্যাম্প কুরমাইন পশ্চিম দিনাজপুর ভারত থেকে হাবিলদার মেজর (অব.) আবু তাহের সরকার ও ক্যাম্প ইনচার্জ অধ্যাপক আবু সাঈদের যুক্তস্বাক্ষরে তাকে সনদপত্র প্রদান করা হয়।

এরপর স্বাধীনতার পর ৪৯ বছর পার হলেও এই মুক্তিযোদ্ধা লুৎফর রহমানের নাম বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা গেজেট বইয়ে অন্তভুক্ত হয়নি। ফলে মুক্তিযুদ্ধের সকল সুবিধা থেকে তিনি বঞ্চিত রয়েছেন।

লুৎফর রহমান জানান, দেশ স্বাধীনতা অর্জনের জন্য জীবন বাজি রেখে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও তৎকালিন ব্যাণিজ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল জলিলের নেতৃত্বে সংগ্রাম করলেও জীবন যুদ্ধে আজ পরাজিত।

সহায় সম্বলহীন লুৎফর রহমান মুক্তিযুদ্ধের গেজেটে তার নাম অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় ক্ষোপ প্রকাশ করে বলেন, গেজেটে তার নাম অন্তর্ভুক্ত করতে বিভিন্ন মহলে বিভিন্ন সময়ে কথা বলেও ব্যর্থ হয়েছি।

মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহনকারী সনদপত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র থাকলেও স্থানীয়ভাবে তার নাম না পাঠানোর কারণে আজও আমার নাম গেজেটে অন্তর্ভুক্ত হয়নি।

এক ছেলে ও সাত মেয়ের জনক লুৎফর গত দুবছর আগে হারিয়েছেন স্ত্রী জরিনা বিবিকে। মেয়েদের বিয়ে দিতে পারলেও ছেলে আব্দুল জলিলকে কোনো চাকরি বা ব্যবসায় যুক্ত করতে না পারায় সে কখনো ক্ষেত খামারে আবার কখনো অন্যের জমিতে কাজ করে সংসারের হাল ধরেছেন।

তবে যখন কাজ থাকে না তখন সংকটে পরতে হয় তাকে। ফলে আর্থিক সংকটের কারণেই শেষ জীবনে এসে পত্রিকা বিক্রির মতো পেশাকে আকড়ে ধরে রেখেছেন লুৎফর রহমান।

উপজেলা সদর, বাসস্টান্ডে যাত্রীবাহী বাসে ও বাজার এলাকায় দিনে পত্রিকা বিক্রি করে গড়ে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা আয় হয়। দিনশেষে সে টাকা দিয়ে চাল, ডাল কিনে বাড়ি ফিরেন তিনি।

মুক্তিযদ্ধে অংশ নেওয়া লুৎফর রহমানের জীবনের শেষ ইচ্ছা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, তার এখন একমাত্র চাওয়া সরকারিভাবে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি। এজন্য তিনি বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি কামনা করছেন।

আলোকিত ভোর/এসএস

 

প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন আমাদের পোর্টালে। কোন ঘটনা, পারিপাশ্বিক অবস্থা, জনস্বার্থ, সমস্যা ও সম্ভাবনা, বিষয়-বৈচিত্র বা কারো সাফল্যের গল্প, কবিতা,উপন্যাস, ছবি, আঁকাআঁকি, মতামত, উপ-সম্পাদকীয়, দর্শনীয় স্থান, প্রিয় ব্যক্তিত্বকে নিয়ে ফিচার, হাসির, মজার কিংবা মন খারাপ করা যেকোনো অভিজ্ঞতা লিখে পাঠান সর্বোচ্চ ৩০০ শব্দের মধ্যে। পাঠাতে পারেন ছবিও। মনে রাখবেন দৈনিক আলোকিত ভোর.কম পোর্টালটি সকল শ্রেণী পেশার মানুষের জন‌্য উন্মুক্ত। তাছাড়া, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার স্বাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবর অথবা লেখা মান সম্পন্ন এবং বস্তুনিষ্ঠ হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে। লেখা পাঠানোর ইমেইল- dailyalokitovor@gmail.com