মুসলিম শহিদদের কবরস্থান ভেঙে উদ্যান বানাচ্ছে ইসরাইল!

প্রকাশিত: ২:৪৫ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ১৩, ২০২১

ধর্ম ডেস্ক: হাজার বছরের ঐতিহ্য ও স্মৃতির ধারক ও বাহক পবিত্র নগরী আল-কুদসের স্থাপনাগুলো দখল ও তা ভেঙে ধ্বংস করে দেয়ার ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠেছে দখলদার ইসরাইল।

এবার তাদের কুনজরে ধ্বংস হচ্ছে ফিলিস্তিনের শহিদদের একটি কবরস্থান।

‘তাওরাত উদ্যান’ নামে একটি উদ্যান বানানোর পরিকল্পনায় তারা ধ্বংস করছে মুসলিম শহিদদের এ কবরস্থান। খবর আল-জাজিরা আরবি।

দখল ইসরাইল বাহিনী আল-কুদসের হাজার বছরের ঐতিহ্য ও স্মৃতিগুলো একের পর এক ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিচ্ছে।

দখল করছে গ্রাম ও শহর। ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র দাইফুল্লাহ আল ফায়েজের তথ্য মতে, জেরুজালেমের পুরাতন শহর এবং আল-আকসা মসজিদের সাথে সংযোগের সিঁড়িগুলো গুড়িয়ে দিচ্ছে।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, দখলদার ইসরাইলি বাহিনীর লক্ষ্য হলো ইসলাম ও আরবদের পরিচয় মিটিয়ে দিয়ে ইয়াহুদিদের রাজ্য প্রতিষ্ঠা করা।

এদিকে কবরস্হান রক্ষনাবেক্ষণ কমিটির চেয়ারম্যান মোস্তফা আবু জুহরা এক বিবৃতিতে জানান, ‘শহিদ ফিলিস্তিনিদের এ কবরস্হানের আয়তন প্রায় ৪ হাজার বর্গমিটার৷ এখানে অসংখ্য শহিদের কবরসহ অনেক প্রাচীন স্মৃতিও রয়েছে এ কবরস্থানে।

আল-আকসা মসজিদে থেকে এ কবরস্থানের দিকে যাওয়ার সংযোগ সিঁড়িটি ভেঙে দিয়েছে। তারা কবরস্থানের এ জমিতে ‘তাওরাত উদ্যান’ বানানোর ঘৃণ্য পরিকল্পনা গ্রহণ করছে৷

ঘৃণ্য এ ঘটনায় প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে জর্ডান। গত সোমবার (১১ জানুয়ারি) জর্ডানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, দখলদার দেশটির এই পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক মানবিক আইন এবং জাতিসংঘের শিক্ষামূলক ও সাংস্কৃতিক সংস্থার সিদ্ধান্তগুলির সুস্পষ্ট লঙঘন৷

তিনি দখলদার ইসরাইল কর্তৃক এই ধ্বংস ও সহিংস কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে অনতিবিলম্বে এই কর্মকাণ্ড বন্ধ রাখার আহ্বান জানান৷

প্রিয় পাঠক, আপনিও লিখতে পারেন আমাদের পোর্টালে। কোন ঘটনা, পারিপাশ্বিক অবস্থা, জনস্বার্থ, সমস্যা ও সম্ভাবনা, বিষয়-বৈচিত্র বা কারো সাফল্যের গল্প, কবিতা,উপন্যাস, ছবি, আঁকাআঁকি, মতামত, উপ-সম্পাদকীয়, দর্শনীয় স্থান, প্রিয় ব্যক্তিত্বকে নিয়ে ফিচার, হাসির, মজার কিংবা মন খারাপ করা যেকোনো অভিজ্ঞতা লিখে পাঠান সর্বোচ্চ ৩০০ শব্দের মধ্যে। পাঠাতে পারেন ছবিও। মনে রাখবেন দৈনিক আলোকিত ভোর.কম পোর্টালটি সকল শ্রেণী পেশার মানুষের জন‌্য উন্মুক্ত। তাছাড়া, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার স্বাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবর অথবা লেখা মান সম্পন্ন এবং বস্তুনিষ্ঠ হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে। লেখা পাঠানোর ইমেইল- dailyalokitovor@gmail.com