দেশজুড়ে

মাদারীপুরের কালিকাপুর পুস্তি পরিবারের পারিবারিক কবরস্থান রক্ষায় সংবাদ সম্মেলন

মাদারীপুর প্রতিনিধি।:

মাদারীপুর সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের চরনাচনা এলাকায় পারিবারিক কবরস্থান রক্ষার্থে সংবাদ সম্মেলন করেছে একই এলাকার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ পুস্তি পরিবার। মঙ্গলবার দুপুরে পারিবারিক কবরস্থানের পাশে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

লিখিত সংবাদ সম্মেলনে জানা যায়, মাদারীপুরে দুই মুক্তিযোদ্ধার কবরসহ প্রায় এক‘শ বছরের একটি পারিবারিক কবরস্থান দখল করে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রভাবশালী লোকমান হোসেন পুস্তির বিরুদ্ধে। শত বছরের কবরস্থানকে রক্ষায় একজোট হয়ে সেগুল উচ্ছেদ করে এলাকাবাসী। এর প্রতিবাদে একাধিকবার মানববন্ধনসহ প্রতিবাদ সভা সমাবেশ করেছিল ভূক্তভোগি পরিবার।

আরও জানা যায়, মাদারীপুর সদর উপজেলার চরনাচনা মৌজায় ২১৬ খতিয়ানে ৪৬২ দাগে কবরস্থান এবং ৫১৬ দাগে সরকারী প্রতিষ্ঠানের জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আদালতে মামলা চলছে। মামলায় স্বাক্ষীদের জবানবন্দী গ্রহণ করা হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেওয়া হয়েছে। এখন শুধু রায়ের অপেক্ষা। আদালতে মামলা চলমান অবস্থায় লোকমান হোসেন পুস্তি ও তার লোকজন নিয়ে রাতের আধারে কবরস্থানের উপর একটি দোচালা ঘর এবং ১৯টি কবরসহ বাউন্ডারী দিয়ে দখলের পায়তারা করছিল। এ ছাড়াও ৫১৬ দাগে সরকারী প্রতিষ্ঠান ফ্লাটশেল্টারের জমি দখল করে ঘর নির্মাণ করে। পরবর্তীতে আদালত দুই বার উচ্ছেদ করে। বর্তমানে সেই সরকারী জমিতে ঘর সির্মাণ করে বসবাস করছে। ফ্লাটশেল্টারের ২৫ শতাংশ জমি মন্ত্রী পরিষদ সচিবের নামে পক্ষে জেলা প্রশাসক, ৩৯ শতাংশ জমি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সচিব পক্ষে জেলা প্রশাসক, মাদারীপুরের দানপত্র দলিল আছে। মসজিদ ও কবরস্থানের জন্য ৭ শতাংশ জমি দানপত্র করা হয়েছে। এ সব দলিলাদী জজ আদালতে দাখিল করা হয়েছে। এ অবস্থায় লোকমান হোসেন পুস্তি আদালত অবমাননা করে তার দখলবাজী অব্যাহত রেখেছিল। এরপর করবস্থান রক্ষায় সংবাদ সম্মেলন, মানববন্ধন, বিক্ষোভ সমাবেশ করেছিল এলাকাবাসী। তবে তার কিছুদিন পর আবারও তারা এই কবরস্থান দখলের চেস্টা করলে এলাকাবাসী ও পুস্তির পরিবারের লোকজন তাতে বাধা দিলে তারা সরতে বাধ্য হয়। তবে আবার যেকোন সময়/ রাতে এই কবরস্থান দখল করতে পারে তাই এই সংবাদ সম্মেলন করে সাবেক চেয়ারম্যান ও পুস্তি পরিবার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কালিকাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুল হক পুস্তি, মো: আবদুস সালাম পুস্তি, মহিউদ্দিন পুস্তি, মো: দাদন পুস্তি, হাসিয়া বেগম, সাহেদা বেগম, মাকসুদা বেগম সহ পুস্তি পরিবারের শতাধিক নারী-পুরুষ।
কবরস্থান দখলের ব্যাপারে র লোকমান হোসেন পুস্তির সাথে যোগাযোগ করেও পাওয়া যায়নি।

কালিকাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এজাজ আকন, তার এলাকাভিত্তিক সমস্যার কারনে তার সাথে কোনভাবেই যোগাযোগ করা যায়নি। তবে পুষিÍ পরিবারের লোকজন জানায় চেয়ারম্যান ও চায় এই কবরস্থান যাতের তাদেরই থাকুক।

Tags

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close