টপ নিউজমতামত

প্রয়োজন সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত

করোনার বিস্তার প্রতিহত করতে সারা বিশ্বের সাথে সাথে বাংলাদেশ সরকারও অনেক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যে হাসপাতালগুলোকে প্রস্তুত করা হয়েছে আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবা দেবার জন্য।

মিডিয়াগুলো প্রতিনিয়ত খবর প্রচার করছে।জনগনকে উদ্বিগ্ন না হয়ে সচেতন হবার পরামর্শ দিচ্ছে।জনসমাগমকে এড়িয়ে চলতে বলা হচ্ছে। একসাথে অনেক লোকের অবস্থানকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। প্রয়োজন ছাড়া বাহিরে বের না হবার জন্য অনুরোধ জানানো হচ্ছে। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে কিভাবে জনসমাগম থেকে আলাদা করা সম্ভব? যেখানে প্রতিদিন শ্রেণি কক্ষে একসাথে ১০০-১৩০ জন শিক্ষার্থীকে পাঠদানসহ পরীক্ষা গ্রহণ (বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে) চলে।

ক্লাস,পরীক্ষা তবুও এক থেকে তিন বা চার ঘন্টার বিষয় কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের হলসমূহের যে পরিস্থিতি বিশেষ করে ডরমেটরিগুলো যেখানে একটি বড় কক্ষে ১০০-১৩০জন শিক্ষার্থী একসাথে অবস্থান করে। সেখানে পা ফেলে হাটার মতো অবস্থা নেই। সূর্যের আলো সেখানে পৌঁছে না, দিনের বেলা লাইট জ্বালিয়ে রাখতে হয়।

প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত জনসংখ্যা অবস্থানের কারণে প্রায়শঃই শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়।এসব এলাকায় করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি সবচাইতে বেশি। বর্তমানে করোনা ভাইরাস ইতালি শহরে মহামারি আকার ধারণ করায় সরকার দেশটিকে অবরুদ্ধ ঘোষনা করেছে। প্রতিদিন সেখানে প্রায় ১০০-১২০জন লোক মৃত্যুবরণ করছে।

আসলে যে কথাটি আমি বলতে চাচ্ছি তা হলো রোগ বিস্তারের পূর্বেই তার প্রতিরোধ প্রয়োজন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে গেলে পুরো দেশ ইতালির মতো অবরুদ্ধ করে লাভ নেই। প্রয়োজন সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত। সুতরাং সময় ক্ষেপন না করে, সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে করোনা প্রতিরোধে অন্ততঃ তিন থেকে চার সপ্তাহ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

লেখক: মাহবুবা সরকার, প্রাধ্যক্ষ, বেগম খালেদা জিয়া হল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Tags

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close