টপ নিউজমতামত

করোনায় কোণঠাসা দেশের পুঁজিবাজার

মরণঘাতক করোনা ভাইরাসে যখন সারা বিশ্বের জন-জীবন হুমকীর মুখে, তখন- বিশ্ব অর্থনীতির পাশাপাশি বাংলাদেশের অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ খাত সমূহের মধ্যে ভ্রমণ, পর্যটন, স্বাস্থ্যসেবা, যোগাযোগসহ সর্বস্তরের গতিপথ যেন নিজ থেকে শ্লথ হতে শুরু করেছে। আর সেই গতিপথ থমকে দাড়াচ্ছে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের দোর গোড়ায়।

দেশের পুঁজিবাজারকে চাঙ্গা করতে তৈরী পোশাক খাতের ভূমিকা বরাবরই অগ্রগণ্য। আর এই রপ্তানি পোশাকের প্রধান বাজার হলো ইউরোপের দেশগুলো। গতবছর যেখানে শুধু ইতালিতেই পোশাক রপ্তানি করে আয় করেছিল ১৪৩ কোটি ডলার সেখানে বর্তমান ইতালির লক-ডাউন পরিস্থিতি নিরাশ করছে পোশাক রপ্তানির সেই সম্ভাবনাকে। তবে পোশাক খাত ছাড়াও দেশের অর্থনীতে আশার আলো জাগিয়েছিল প্রবাসীদের রেমিট্যান্স।

চলতি বছরের জুলাই থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রাপ্ত রেমিট্যান্সের পরিমাণ ছিল ১০৪২ কোটি ডলার। কিন্তু এখন পর্যন্ত প্রায় ১৬০ টির মতো দেশে করোনার প্রকোপে এবছর প্রবাসীদের কাছ থেকে সেরকমটা আশা করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে দেশের জিডিপিতে এই ধাক্কা সামাল দেয়া অনেকটাই কঠিন হয়ে পড়বে এমনটাই আশঙ্কা করছেন দেশের শীর্ষ কর্মকতারা। এদিকে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এডিবি ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে যে- সবচেয়ে নাঁজুক পরিস্থিতে রয়েছে বাংলাদেশের জিডিপি।

এডিপির মতে, এই পরিস্থিতি বহাল থাকলে তাদের ক্ষতি হবে প্রায় ৩০০ কোটি ডলারের। যার ফলে চাকুরী হারাতে পারে ৮ লাখ ৯৪ হাজার ৯৩০ জনের মতো। যেখানে কর্মরত আছে বাংলাদেশের জনসংখ্যার বিরাট একটি অংশ। যা অর্থনীতিতে চরমভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অন্যদিকে জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়নবিষয়ক সংস্থা আঙ্কটাড জানিয়েছে, অর্থনীতির দুর্দশার ফলে ক্ষতিগ্রস্থ শীর্ষ ২০ দেশের তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশ। যা আমাদের জন্য আগাম অশনি সংকেতেরই আভাস দিচ্ছে।

সেই সাথে বিশ্লেষকরা বলছেন- দেশের পুঁজিবাজারে এমন কাঁপুনি অবিরত থাকলে এর প্রভাব পড়বে সমস্ত দেশবাসীর উপর।

অর্থনীতিবিদরা ধারণা করছেন- করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতির টাল মাতাল পরিস্থিতিতে বাংলাদেশও ব্যাপকভাবে অর্থনীেিত কোণঠাসা হয়ে পড়তে হচ্ছে। করোনার প্রভাবে ইতোমধ্যে দেশের মেগা প্রকল্পগুলোর সমূহের পদ্মা সেতু, পদ্মা সেতুতে রেল সংযো, পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলসংযোগ সহ কর্ণফুলী টানেলের মতো প্রকল্পে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। যার রেশ টানতে হবে দেশের পুঁজিবাজারকে।

লেখক- মোস্তাফিজুর রহমান মিন্টু
শিক্ষার্থী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Tags

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close