পুকুর ভরাটে জড়িতদের বিরুদ্ধে রাবি উপচার্যের ব্যবস্থা

প্রকাশিত: ৮:২৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২১

পুকুর ভরাটে জড়িতদের বিরুদ্ধে রাবি উপচার্যের ব্যবস্থা

অনলাইন ডেস্ক: রাতের আধারে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সিমানা প্রাচীর ভেঙ্গে পুকুর ভরাট করছিলেন রাজশাহী বনবিভাগের একজন ফুলবাগানের মালি। বিশ্ববিদ্যালয় কবরস্থান জামালপুর সংলগ্ন সেই স্থানের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষিপ্রকল্প বিভাগের গার্ড হারেজ। শনিবার গভীর রাতে প্রাচীর ভাঙ্গার বিষয়টি জানতে পারেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আব্দুস সোবহান।

তিনি মূহুর্তেই পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় গার্ড হারেজ গনমাধ্যম কর্মীদের নিকট একটি সাক্ষাতকার দেন। তিনি বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহার সচিব প্রদিপ কুমার ও কৃষি প্রকল্পের সাজ্জাদ হোসেন এই প্রাচীর ভাঙ্গার বিষয়টি অবগত রয়েছেন।

কৃ্ষি প্রকল্পের সাজ্জাদ হোসেনের নিকট অনুমতির বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি গনমাধ্যম কর্মীর পরিচয় পেয়েই রাগান্বিত হয়ে বলেন আপনারা আমাকে কেন ফোন করছেন? তিনি বলেন, উপরের নির্দেশে হচ্ছে সেখানে ফোন দিন। উপ-উপাচার্য আনন্দ সাহার সচিব প্রদিপ কুমারের নিকট প্রাচির ভাঙ্গার বিষয়টি মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাকে বলেছিলেন মাত্র দুই গাড়ি মাটি নেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের জায়গা আমবাগান ট্রাক চলাচলের রাস্তা তৈরি করে প্রাচির ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কৌশলে কথা এড়িয়ে যান। তবে সচিব প্রদিপ সহ তার উপরের কর্তার নাম এসেছে গভীর অনুসন্ধানে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মত বিদ্যাপীঠের প্রাচির ভাঙ্গার ঘটনা নিয়ে রাতেই চন্দ্রিমা থানা পুলিশ দুইটি ট্রাক সহ ট্রাকের চালকদের আটক করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সুত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরেই একটি চক্র রাবির ভাইস চ্যাঞ্চলর ড.আব্দুস সোবহানকে প্রশ্ন বিদ্ধ করতে বিভিন্ন ফুঁন্দি আটছেন। আর তারই আরেকটি নমুনা হিসেবে এই ঘটনাকে দেখছেন সুত্রটি। সহকারি ভাইস চ্যাঞ্চলরের সচিব হয়ে কিভাবে প্রাচির ভাঙ্গার অনুমতি দিতে পারেন সেটি নিয়েও চলছে রাবিতে আলোচনার ঝড়। তবে রাবির প্রক্টর জানিয়েছেন রাবির এই প্রাচির ভঙ্গায় প্রায় দুই লাখ টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। আমরা এরই একটি তালিকা তৈরি করছি।

শুধু ক্ষতি পুরন নয় এই অন্ধকার জগতের সাথে কারা জড়িত রয়েছে উপর থেকে নিচ পর্যন্ত তাদের সনাক্ত করে তাদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন রাবির একাধিক কর্মকর্তা। তার বলেন মাঝে মধ্যেই ভাইস চ্যাঞ্চলরের নামে কোনএক ইস্যু তৈরি করে এই পবিত্র শিক্ষা বিদ্যাপীঠকে গরম করে নিজেদের সুবিধা ভোগ করেন এই চক্রটি। ড.আব্দুস সোবহান রাবির উপাচার্য হিসেবে যোগদান করার পর থেকেই একটি সুবিধা বাদি চক্র মরিয়া হয়ে কাজ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বদনাম ছড়ানোর জন্য।

তাদের চিহ্নিত করে শাস্তি দেওয়াসহ রাবির শিক্ষারমান উন্নয়নে ড.আব্দুস সোবহানের বিকল্প হিসেবে উন্নয়নের কারিগর কাউকে দেখছেন না রাবির শতাধিক কর্মকর্তা কর্মচারি। রাবির প্রাচির ভাঙ্গার ব্যাপারে গভির রাতেই তড়িং গতিতে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উপাচার্য ও প্রক্টর কে সাধুবাদ জানিয়েছেন সুশীল সমাজের মানুষ।

ফেসবুকে আমরা

পুরাতন সব সংবাদ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

এই মাত্র পাওয়া