খুলনায় করোনা হাসপাতালে ঠাঁই নেই, কাল থেকে ফুলতলায় কঠোর লকডাউন

প্রকাশিত: ৪:৫২ অপরাহ্ণ, জুন ১০, ২০২১

খুলনায় করোনা হাসপাতালে ঠাঁই নেই, কাল থেকে ফুলতলায় কঠোর লকডাউন

খুলনা জেলা প্রতিনিধি:

খুলনায় প্রতিদিনই করোনা শনাক্তের সংখ্যার সাথে সাথে মৃতের সংখ্যাও বাড়ছে।ফলে হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েছে।খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে ধারণক্ষমতার বাহিরে রোগী ভর্তি রয়েছে। যে কারণে নতুন করে রোগী ভর্তি নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। অতিরিক্ত রোগী থাকায় নতুন বেড খালি না হওয়া পর্যন্ত রোগী ভর্তি নিচ্ছে না কর্তিপক্ষ। বেড খালি সাপেক্ষে রাগী ভর্তী নেওয়া হবে।

খুলনা করোনা হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকাল ৮ টা পর্যন্ত খুলনা করোনা হাসপাতালে ভর্তি ছিল ১২৬ জন রোগী। যার মধ্যে ৫৫ জন আছেন রেড জোনে, ২৯ জন ইয়োলো জোনে। এ ছাড়া আইসিইউতে ১২ জন এবং এইচডিইউতে ৩০ জন আছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ভর্তি হয়েছেন ৫০ জন রোগী। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৭ জন। দুপুর ১ টায় ভর্তি রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৩০ জন। ১০০ শয্যার হাসপাতালে ধারণক্ষমতার বাইরে ১৩০ জন রোগী ভর্তি থাকায় যেমন চিকিৎসক ও নার্সদের হিমসিম খেতে হচ্ছে, তেমনই রোগীদেরও ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। এ অবস্থায় আরও অন্তত ৩০টি বেড বৃদ্ধির জন্য চিকিৎসক ও নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মী চেয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

খুলনা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, খুলনা জেলা ও মহানগরীতে নতুন করে ১২২ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ৪১২ জনের নমুনা পরীক্ষায় এ শনাক্ত হয়। খুলনায় মোট নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্তের হার ২৯ শতাংশ।

খুলনা করোনা হাসপাতালের ফোকাল পার্সন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে ধারণক্ষমতার বাইরে রোগী ভর্তি রয়েছে। বাধ্য হয়ে রোগীদের ফ্লোরে রাখতে হচ্ছে। বেড খালি না হলে রোগি ভর্তি নেওয়া সম্ভব নয়। এ জন্য বেড খালি সাপেক্ষে রোগী ভর্তি নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ বলেন, হাসপাতালে শয্যার চেয়ে বেশি রোগীর চাপ বেড়েছে। এর আগে কখনো এতো সংখ্যক রোগী আগে কখনো ভর্তি হয়নি। ফলে রোগীর চাপ সামলাতে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের হিমসিম খেতে হচ্ছে। শয্যা খালি হওয়া সাপেক্ষে ভর্তি চলছে। ভর্তি বন্ধ হয়নি। আগামীকাল করোনার জেলা কমিটির মিটিং আছে। সেই মিটিং-এ পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এদিকে, খুলনার ফুলতলায় করোনা সংক্রমন রোধে উপজেলা প্রশাসন ও করোনা প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে বৃহঃবার (১০ জুন) বেলা ১১টায় উইএনও’র অফিস কক্ষে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় করোনার উর্ধ্বমুখী সংক্রমণে রোধকল্পে শুক্রবার (১১ জুন) থেকে আগামী ৭দিন উপজেলার বাজারসমূহে কঠোর বিধি নিষেধ আরোপের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

এ সময় কাঁচামাল, মুদি দোকান, সেলুন, চায়ের দোকান, মোবাইল ফ্লাক্সিলোডের দোকান সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে। তবে কোন অবস্থাতেই ৪ জনের বেশি জমায়েত হওয়া যাবে না এবং মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও ইউএনও সাদিয়া আফরিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ শেখ আকরাম হোসেন।

কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ জেসমিন আরার পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলী বিশ্বাস, ডাঃ তরিকুল ইসলাম, ওসি মোঃ মাহাতাব উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম, শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এসময় উপজেলার ৪ ইউনিয়নে ব্যাপক প্রচারণা, কমিটি গঠনের মাধ্যমে মনিটরিং, আক্রান্তের বাড়িতে কঠোর লকডাউন ও প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী সরবরাহের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

ফেসবুকে আমরা

পুরাতন সব সংবাদ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

এই মাত্র পাওয়া