রূপগঞ্জে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ২:৩১ অপরাহ্ণ, জুন ১৪, ২০২১

রূপগঞ্জে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন

নজরুল ইসলাম লিখন, রূপগঞ্জ:

রূপগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী সোলায়মান (৩৭) গণপিটুণিতে নিহতের ঘটনায় মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব তোফায়েল আহমেদ আলমাছ, তারাব পৌরসভার কাউন্সিলর ও রূপগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি রফিকুল ইসলাম মনির সহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আসামী করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করা হয়েছে। তারাব পৌর আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে সোমবার সকালে ১৪ জুন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রূপসী বাস্ট্যান্ড-তারাব পৌরসভার সামনে এ মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, শীর্ষ সন্ত্রাসী সোলায়মান যুবলীগের কোন নেতা বা কর্মী না। একটি চক্র সোলায়মান হত্যা মামলাকে রাজনৈতিক মামলায় রূপ দিতে সোলায়মানকে যুবলীগ কর্মী বানিয়েছে। চক্রটি বর্তমান যুবলীগকে বিতর্কীত করার জন্য একজন যুবলীগ নেতাকে হয়রানি করার জন্য তার নামে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। অবিলম্বে নির্দোষ ব্যক্তিদের সোলায়মান হত্যা মামলা থেকে অব্যাহতি দিতে হবে। বক্তারা আরও বলেন, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সোলায়মান রূপগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী ছিলো।

এমন কোনো অপরাধ নেই সে রূপগঞ্জে করে নাই। গত ১ জুন তারাব পৌরসভার গন্ধর্বপুর নামাপাড়া এলাকায় দিন দুপুরে অস্ত্রে শস্ত্রে সজ্জিত ডাকাত প্রবেশ করেছে মর্মে মসজিদে মাইকিং করা হয়। এ সময় গ্রামবাসী ধাওয়া করে সোলায়মানকে জাপটে ধরে গণপিটুণি দেয়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সে মারা যায়।

ঘটনাস্থল তারাব পৌরসভার গন্ধর্বপুর নামাপাড়া এলাকায় হওয়া সত্ত্বেও ১০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব তোফায়েল আহমেদ আলমাছ, ২০ কিলোমিটার দূরে কাঞ্চনের ডিস ব্যবসায়ী বিএনপি নেতা সানাউল্লাহ সানি, ১৭ কিলোমিটার দূরে সোনারগাঁও থানার পেরাবো এলাকার রুবেল সিকদার ও রূপগঞ্জের আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী সহ ২১ জনকে এ মামলায় আসামী করা হয়।

শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে ও আসন্ন মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তোফায়েল আহমেদ আলমাছকে অযোগ্য করে তুলতেই গণপিটুনিতে নিহতের ঘটনায় একটি চক্র সুকৌশলে তাদেরকে আসামী করেছে।

সুষ্ঠু তদন্ত করে সোলায়মান হত্যাকারীদের বিচার করতে হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান হাবিব, তারাব পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ খাঁন, রূপগঞ্জ উপজেলা যুবলীগ সভাপতি কামরুল হাসান তুহিন, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান শাহীন, তারাব পৌরসভার কাউন্সিলর আমির হোসেন ভুঁইয়া,রাসেল শিকদার, মাহাবুবুর রহমান জাকারিয়া, আতিকুল ইসলাম, এড. জসিম উদ্দিন, আক্তার হোসেন, আনোয়ার হোসেন, লায়লা পারভীন, মাহফুজা বেগম, জোসনা বেগম , তারাব পৌর যুবলীগ সভাপতি মোশারফ হোসেন, তারাব পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান বাবেলসহ পৌর ছাত্রলীগ, মহিলা ও যুব মহিলা লীগ নেতৃবৃন্দ।

প্রসঙ্গত হত্যা, ডাকাতি, চাঁদাবাজি ও ধর্ষণসহ বহু মামলার আসামী সোলায়মান (৩৭) । সে রূপগঞ্জের মাহমুদাবাদ এলাকার ছালাউদ্দিনের ছেলে।

ফেসবুকে আমরা

পুরাতন সব সংবাদ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
এই মাত্র পাওয়া