মতামতরাজনীতি

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসের উৎস কোথায়?

সারা বাংলাদেশে রাজনৈতিক এবং অরাজনৈতিক মহলে একটা কথা ব্যাপকভাবে প্রচলিত আছে ” সব নেতাকে কেনা যায় কিন্তু শেখ হাসিনা কে কেনা যায় না। শেখ হাসিনা কে কেনা যায় না শতভাগ সত্যি। আর এটাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহস, মনোবল আর শক্তির উৎস। আওয়ামী লীগের তৃণমূল থেকে জাতীয় পর্যায় পর্যন্ত অসংখ্য নেতাকর্মী আছে প্রচন্ড সৎ এবং দুর্নীতিমুক্ত।

এতদসত্বেও, গত মঙ্গলবার (১৫ জুলাই) সেনাছাউনিতে জন্ম নেওয়া রাজনৈতিক দলের অন্যতম নেতা মশিউর রহমান রাঙ্গা খুব সহজেই বলে দিলেন একমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া আওয়ামী লীগের সবাই দূর্নীতিবাজ। কেউ কোন টু শব্দ পর্যন্ত করলেন না। তাহলে কি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রভাবশালী নেতারা রাঙ্গার অভিযোগ কে স্বীকার করে নিলেন? সে যাই হোক, আমি রাঙ্গার অভিযোগের তীব্র প্রতিবাদ জানাই।

আমরা জানি, সারা বাংলাদেশের পরিবহন সেক্টর যাদের কাছে জিম্মি সেই সিন্ডিকেটের গুরুত্বপূর্ণ একজন হচ্ছে এই মশিউর রহমান রাঙ্গা। আমি স্পষ্ট ভাষায় বলতে পারি রাঙ্গার অভিযোগ শতভাগ সত্যি নয়, অসংখ্য নেতাকর্মী আছে যাদেরকে ব্যাক্তিগত ভাবে চিনি যারা অত্যান্ত সৎ এবং দুর্নীতিমুক্ত। এই সৎ এবং নিষ্ঠাবান রাজনৈতিক কর্মী আছে বলেই বঙ্গবন্ধু দেশকে স্বাধীন করে যেতে পেরেছে, ৭৫ এর কালো অধ্যায় পাড়ি দিয়েও আওয়ামী লীগ টিকে আছে এবং একুশ বছর পার করেও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য এটিও একটা সাহসের উৎস। মনে রাখতে হবে একজন দলীয় প্রধান সৎ না হলে সেই দল একসময় তছনছ হয়ে যায়, আর একজন রাষ্ট্রপ্রধান সৎ না হলে সেই রাষ্ট্র ব্যবস্হা ভেঙে পড়ে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সততা নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ নাই। বড় দল, ক্ষমতাসীন দল অনেকেই অনেক ধরনের সুযোগ কাজে লাগানোর চেষ্টা করবে এটাই স্বাভাবিক। আমি ব্যাক্তিগত ভাবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য মারুফা আক্তার পপি কে চিনি, যিনি ছাত্রলীগের সাবেক সফল ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ছিলেন। দল টানা একযুগ ধরে ক্ষমতাসীন হওয়ার পরও তিনি এত সাধারণ জীবন যাপন করেন যা না দেখলে কেউ বিশ্বাস করবে না। ক্ষমতার বলয়ে থেকেও তিনি সাদাসিধা নৈতিক জীবন যাপন করেন।
কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের অনেক নেতা এরকম নির্মোহ রাজনীতি করেন নিশ্চয়ই। তৃণমূল থেকে শুরু করে সব লেভেলে এরকম অনেক নির্লোভ নেতাকর্মী আছেন।

তাই বলা যায় শেখ হাসিনার ব্যাক্তিগত সততা এবং অসংখ্য সৎ এবং দেশপ্রেমিক নেতাকর্মীই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহস, শক্তি আর মনোবলের উৎস। সৎ এবং চৌকস রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে শেখ হাসিনা নিজের জায়গা করে নিতে সক্ষম হয়েছে।

লেখক: মশিউর রহমান
সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ
শরিফপুর ইউনিয়ন শাখা, সদর জামালপুর।

ই/এস

Tags

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
You cannot copy content of this page
Close
Close